বিশ্ব.কম হোম, বিজ্ঞান, ফিডব্যাক,অংশ নিন fb page

পৃষ্ঠা

শনিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

এইচটিএমএল কোর্স ৬ষ্ঠ পর্বঃ প্যারাগ্রাফ বা অনুচ্ছেদ তৈরি

এইচটিএমএলে (html) একটি প্যারাগ্রাফ বা অনুচ্ছেদ তৈরির জন্য <p> ট্যাগ ব্যবহার করতে হয়। একটি সাধারণ উদাহরণ দেখুন। এইচটিএমএল এর অনুচ্ছেদ কোডগুলো ছবিতে দেখানো হল।
এইচটিএমএল প্রদর্শনঃ
* এইচটিএমএল দিয়ে টেক্সট ঠিক কিভাবে প্রদর্শিত হবে তা বলা যাবে না। কারণ, এটা নির্ভর করবে মনিটর, স্ক্রিন বা উইন্ডোজের আকারের উপর। অর্থ্যাৎ অনুচ্ছেদে কয়টি লাইন থাকবে তা স্ক্রিনের উপর নির্ভর করবে।
* আপনি আপনার অনুচ্ছেদে অনেকগুলো লাইন তৈরি করলেও যদি সেগুলো এক লাইনে এঁটে যায় তবে ব্রাউজার তাই করবে।
* আপনি শব্দের মাঝে মাঝে বেশি বেশি স্পেস (Space) ব্যবহার করলেও ব্রাউজার তাকে একটি স্পেসে রূপান্তরিত করবে।
 যেমনঃ 
 উপরোক্ত এইচটিএমএল কোডের ফলাফলঃ
তাহলে এর কি কোন সমাধান নেই? 
আছে।
একটি এইচটিএমএল ট্যাগ আছে </br>। এই ট্যগকে বলা হয় লাইন ব্রেক। এটা হল কি-বোর্ডে এন্টার (Enter) চাপার মত। </br> যুক্ত করলেই পরের অংশ চলে যাবে নিচের লাইনে।
আরেকটি সমাধানঃ
আরেকটি ট্যাগ আছে <pre>। এর কাজ হল সোর্স কোড যেভাবে লেখা হয়েছে প্রদর্শনীতে সে বিন্যাস ধরে রাখা।


এইচটিএমএল কোর্স ৫ম পর্বঃ লিঙ্ক তৈরি

লিঙ্ক ওয়েব পেজের অন্যতম অংশ। প্রোগ্রামিং এর ভাষায় বলে হাইপারলিঙ্ক। আমরা অনেক সময় ওয়েব পেজে দেখি লেখা থাকে এখানে ক্লিক করুন, Click Here ইত্যাদি যেখানে ক্লিক করলে ব্রাউজার অন্য পাতায় চলে যায়। অনেক সময় আবার 'এখানে ক্লিক করুন', 'Click Here'ধরণের কথা থাকে না, কোন শব্দ বা শব্দগুচ্ছই লিঙ্ক হিসেবে কাজ করে। এর সবচেয়ে ভালো উদাহরণ উইকিপিডিয়া
 লিঙ্কের ট্যাগ হল <a>। 
এইচটিএমএল লিঙ্ক তৈরির কোডঃ
কোড কপি করতে কোডের ওপর মাউস রেখে ডান পাশের <> চিহ্নে ক্লিক করুন।
এখানে url এর স্থলে ওয়েবপেজের ঠিকানা বসবে। 
যেমনঃ
কোড কপি করতে কোডের ওপর মাউস রেখে ডান পাশের <> চিহ্নে ক্লিক করুন।
আরো কাস্টোমাইজেশনঃ
* ব্রাউজারকে নতুন ট্যাব খুলতে বাধ্য করা। এতে লিঙ্কে ক্লিক করলেই ব্রাউজার আগের ট্যাব আগের মত রেখে নতুন লিঙ্ক নতুন ট্যাবে খুলবে। এর জন্য target Attribute ব্যবহার করতে হবে। তবে, HTML5 এটি সমর্থন করে না।
কোড কপি করতে কোডের ওপর মাউস রেখে ডান পাশের <> চিহ্নে ক্লিক করুন।

এইচটিএমএল কোর্স ৪র্থ পর্বঃ হেডিং (Heading)

স্বাভাবিকের চেয়ে বড় অক্ষরে শিরোনাম লিখতে হেডিং ব্যবহার করতে হয়। হেডিং এর জন্য ট্যাগ হল ৬ টি। <h1> সবচেয়ে বড় থেকে ক্রমান্বয়ে ছোট ও ক্ষুদ্রতম <h6>।
তবে, হেডিং কে শিরোনামের কাজেই ব্যবহার করতে হবে, টেক্সট বড় বা বোল্ড করার জন্য নয়। ওয়েব পেইজ ইন্ডেক্স করার জন্য সার্চ ইঞ্জিন হেডিং দেখে। প্রতিটি লাইনের নিচে রেখা টানার জন্য <hr> ট্যাগ ব্যবহার করুন। 
নিচে একটি রেখা সহ ৬ টি হেডিং এর কোড ও ফলাফল ছবিতে দেখানো হল। 
কোড কপি করতে কোডের ওপর মাউস রেখে ডান পাশের <> চিহ্নে ক্লিক করুন।

তবে, এইচটিএমএল হেডিং এর সাথে <head> ট্যাগের সাথে কোন সম্পর্ক নেই। হেড ট্যাগ আমরা অন্য পাঠে দেখবো।

html (এইচটিএমএল) কোর্স ২য় পর্বঃ নোটপ্যাডে এইচটিএমএল চর্চা

অন্যান্য প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের মত html চর্চা করতে চাইলে আপনাকে কোন কম্পাইলার ডাইনলোড ও ইন্সটল করতে হবে না। আপনার নেট কানেকশন থাকাও কোন শর্ত নয়। তবে, ওয়েবসাইট বানাতে চাইলে আলাদা কথা। আপনার পিসিতে থাকা নোটপ্যাডই এইচটিএমএল কম্পাইলার হিসেবে উপযুক্ত। চলুন, দেখা যাক কিভাবে?
১. নোটপ্যাড খুলুন। ক্লিক করুন Start > All Programs > Accessories > Notepad।
অথবা Start এ ক্লিক করে Notepad লিখে এন্টার চাপুন।
২. এতে কিছু এইচটিএমএল কোড লিখুন। যেমন এ রকম। আরো কোড পাবার জন্য আমাদের এইচটিএমএল কোর্স দেখুন।
৩. এবার ফাইলটি Save করুন।  File -> Save as
অথবা এভাবেঃ কি-বোর্ডে Ctrl + S চাপুন। Save করার সময় অবশ্যই এক্সটেনশন হিসেব .html বা .htm দিন। সাধারণত আগে থেকে *.txt থাকে। এখানে * এর স্থলে যে কোন নাম এবং .txt এর বদলে .html বা .htm দেবেন।
৪. এবার ফাইলটি যেখানে সেভ করেছেন, সেখানে গিয়ে সেটি খুলুন। আবার Edit করতে চাইলে Right ক্লিক দিয়ে Open With থেকে Notepad বাছাই করুন।

এইহটিএমএল (html) কোর্সঃ সূচনা

HTML কীঃHTML হচ্ছে একটি মার্কআপ ল্যাঙ্গুয়েজ অর্থ্যাৎ টেক্সট দেখেই এর বিশেষত্ব বোঝা যায়।এটা ওয়েব ডিজাইনের প্রাথমিক প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ। ওয়েব পেইজ সাজাতে হলে যেমন টেক্সট বড়-ছোট, রঙিন করা, লিঙ্ক দেওয়া ইত্যাদি HTMLএর মাধ্যমে করা হয়।
HTML এর পূর্ণরূপ কীঃ
HTML এর পূর্ণরূপ হল Hyper Text Markup Language।
HTML  কোড কিভাবে লেখা হয়?
HTML কোড লেখা হয় ট্যাগ (Tag) ব্যবহারের মাধ্যমে। প্রত্যেক ট্যাগের আগে ও পরে যথাক্রমে '<' ও '>' চিহ্ন দিতে হয় কোটেশন চিহ্ন ছাড়া)। যেমন টেক্সট মোটা বা বোল্ড অক্ষরের করতে হলে <b>, বাঁকা অক্ষরে লিখতে হলে <i> ইত্যাদি।
html কোথায় লিখবো?
সাধারণত কোন html এডিটর সফটওয়্যারে কোডগুলো লিখে ফাইল বানিয়ে ওয়েবসাইটে আপলোড করতে হয়। তবেম ওয়েবসাইটের কন্ট্রোল প্যানেলেও ইডিট করা যায়।
তবে, আপনি আপনার উইন্ডোজ পিসিতেই অফলাইনে (ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই) html চর্চা করতে পারবেন।
এছাড়া অনলাইনে ডাব্লিউথ্রিস্কুলস এর ওয়েবসাইটেও চর্চা করতে পারেন। এখানে ক্লিক করুন
এইচটিএমএল এর ফাইল এক্সটেনশন কী?
যে কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজে তৈরি ফাইলের একটি এক্সটেনশন থাকে। যেমন পিইচপি প্রোগ্রামিং এর জন্য .php, জাভাস্ক্রিপ্টের জন্য .js, তেমনি html কোন ডকুমেন্টের জন্য এক্সতেনশন দিতে হয় .html অথবা .htm।
একটি উদাহরণঃ

কোড কপি করতে কোডের ওপর মাউস রেখে ডান পাশের <> চিহ্নে ক্লিক করুন।


ব্যাখ্যাঃ
১. DOCTYPE   দ্বারা ডকুমেন্টের টাইপ বা ধরণ বোঝানো হচ্ছে। পরবর্তীতে আরো বিস্তারিত জানবেন।
২. এইচটিএমএল ডকুমেন্টের সম্পূর্ণ কোড <html></html> কোডদ্বয়ের মধ্যে থাকে। তবে এ থাগদ্বয় না দিলেও চলে।
৩. <body> and </body> ট্যাগের মাঝে ডকুমেন্টের দৃশ্যমান অংশ থাকে। আপনি যা ব্রাউজারে দেখাতে চান, সেটা এখানে থাকবে।
৪. <h1> দ্বারা বৃহত্তম হেডিং লেখা হয়।
৫. <p> ও </p> এর মাঝে থাকে কোন একটি নির্দিষ্ট অনুচ্ছেদ।
html এর বিভিন্ন ভার্সনঃ
অন্যান্য প্রোগ্রামিং এর মতই এরও অনেকগুলো ভার্সন আছে। ২০১২ সালে সর্বশেষ HTML5 অবমুক্ত হয়।
পরের পাঠঃ নোটপ্যাডে কিভাবে html চর্চা করা যায়?

শুক্রবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

এইচটিএমএল স্ক্রোল বক্স তৈরির কোড

HTML স্ক্রোল বক্স ব্যবহার করবেন যদি আপনি অল্প একটু অনেক লেখা রাখতে চান। অনেক লেখা যদি বক্সের মধ্যে জায়গা করে নিতে না পারে তবে স্বয়ক্রিয়ভাবে স্ক্রোলবার তৈরি হবে (ছবির ডান অংশে ও নিচে)।  যেমন নিচের ছবির বক্সটি দেখুন।
div ট্যাগ ব্যবহার করে এই স্ক্রোল বক্সটি খুব সহজেই তৈরি করা যায়। নিচে স্ক্রোল বক্সের কোড দেখানো হল।
দেখুন, এখানে উচ্চতা ১২০ px ও প্রস্থ 480 px দেওয়াতে লেখাটা বক্সের মধ্যে জায়গা করে নিতে পেরেছে।কিন্তু যদি height বা width আরো কমিয়ে দেন, তাহলে বক্সের ভেতরে জায়গা না হলে অটোমেটিক স্ক্রোলবার তৈরি হবে।
যেমন নিচে উচ্চতা 60 px করে দিলাম।
নিজের মত করে সাজানঃ
*ইতোমধ্যে দেখলেন, height ও width পাল্টিয়ে বক্সের আকার পাল্টাতে পারেন।
* border এর মান বাড়াতে পারেন। css ব্যবহার করে আরো সুন্দর করতে পারেন।
* ব্যাকগ্রাউন্ড কালার দিতে পারেন। যেমন নিচে দেখুন। এখানে coral দেওয়া আছে। আপনি green, red, pink ইত্যাদি আপানার যা ইচ্ছা দিন।
*এই বক্সের ভেতরে অন্য যে কোন html কোড ব্যবহার করতে পারেন, যেমন ছবি, লিঙ্ক ইত্যাদি।

বুধবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকা (২০১৪)

 এই তালিকা সতত পরিবর্তনশীল। সাধারণত আমেরিকান বিজনেস ম্যাগাজিন ফোর্বস প্রতি বছর মার্চ মাসে বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকা প্রকাশ করে।বছরের শুরুতে বিল গেটস ১ নম্বরে থাকলেও এখন স্লিম উঠে গেছেন শীর্ষে।
কার্লোস স্লিম হেলু, মেক্সিকো।
নিচে বর্তমানে (সেপ্টেম্বর,১৪) বিশ্বের শীর্ষ দশ ধনীর তালিকা দেওয়া হল। 

ক্রম
নাম
অর্থের পরিমাণ (বিলিয়ন ডলার)
বয়স
দেশ
অর্থের উৎস
কার্লোস স্লিম হেলু
৮২.৮
৭৪
মেক্সিকো
টেলিকম
বিল গেটস
৮১.৩
৫৮
আমেরিকা
মাইক্রোসফট
ওয়ারেন বাফেট
৬৮.২
৮৩
আমেরিকা
Berkshire Hathaway
অ্যামানিচিও ওর্টেগা
৬০.৬
৭৮
স্পেন
খুচরা
ল্যারি ইলিসন
৪৮.৫
৬৯
আমেরিকা
ওর‍্যাকল
চার্লস কোচ
৪৩
৭৮
আমেরিকা
বিবিধ
ডেভিড কোচ
৪৩
৭৪
আমেরিকা
বিবিধ
কৃষ্টি ওয়াল্টন পরিবার
৩৮
৫৯
আমেরিকা
ওয়াল মার্ট
জিম ওয়াল্টন
৩৬.৩
৬৬
আমেরিকা
ওয়াল মার্ট
১০
লিলিয়ানে বেটেনকোর্ট পরিবার
৩৫.৫
 ৯১
ফ্রান্স
L'Oreal

লক্ষ্যণীয়ঃ
* বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনীর ৭ জনই আমেরিকার। 
* বিল গেটস সবচেয়ে বেশি বার শীর্ষে ছিলেন। ১৯৯৫ সাল থেকে টানা ২০০৭ সাল পর্যন্ত। কিন্তু এই লিস্টে তাঁর বয়স সবচেয়ে কম.
এই তালিকা যে কোন সময় এদিক ওদিক হতে পারে। তবে খুব বেশি নড়চড় হবে না। শীর্ষত্ব এই কয় জনের মধ্যেই থাকে।
সূত্রঃ
১. http://www.forbes.com/billionaires/list/#tab:overall

বৃহস্পতিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

বিখ্যাত ও জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোর প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ

কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এর রয়েছে অসংখ্য ভাষা। প্রতি বছর বাড়ছে ভাষার সংখ্যা। কিন্তু সব ভাষার চাহিদা সমান নয়। এখানে আমরা দেখবো, বিশ্বের জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোতে কোন ভাষাগুলো ব্যবহৃত হচ্ছে।

বিখ্যাত ওয়েবসাইটগুলোর অধিকাংশই গতিশীল (Dynamic)। এগুলোতে ব্যবহার করা হয় সার্ভার সাইড ও ক্লায়েন্ট সাইড কোডিং এবং ডেটাবেজ।
ওয়েবসাইট
জনপ্রিয়তা (ইউনিক ভিজিটর ) (কোটি)
সার্ভার সাইড ল্যাঙ্গুয়েজ
ডেটাবেজ
মন্তব্য
১ শ’
C, C++, Go, Java, Python
BigTable
সর্বাধিক ব্যবহৃত সার্চ ইঞ্জিন
৮৮
Hack, PHP, C++, Java, Python, Erlang, D, Xhp
MySQL, HBase
সর্বাধিক ব্যবহৃত সামাজিক যোগাযোগ সাইট
৮০
C, C++, Java, Python
MySQL, BigTable
সর্বাধিক ভিজিটপ্রাপ্ত ভিডিও শেয়ারিং সাইট
৬০
PHP
MySQL, PostgreSQL
সার্চ ইঞ্জিন, ওয়েব পোর্টাল, ইমেইল
৪৯
ASP.NET
Microsoft SQL Server
৪৪
ASP.NET
Microsoft SQL Server
মেসেঞ্জার নামে পরিচিত এমেইল ব্যবহারের সহজ উপায়
৪১
PHP
MySQL, MariaDB
মুক্ত অনলাইন বিশ্বকোষ
৩৪
Python
BigTable
ব্লগ সেবা দাতা
২৩
ASP.NET
Microsoft SQL Server
সার্চ ইঞ্জিন
১৬
C++, Java, Scala, Ruby on Rails
MySQL
১৪০ অক্ষরে সামাজিক যোগাযোগ
সূত্রঃ উইকিপিডিয়া

বুধবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

পাসওয়ার্ড শক্তিশালী করার কিছু কৌশল

[এই পোস্টটি প্রতিনিয়ত আপডেট হবে।]

আপনার মূল্যবান একাউন্ট হাতছাড়া হবার প্রথম দেয়াল শক্তিশালী পাসওয়ার্ড। পাসওয়ার্ড যত শক্তিশালী হবে, হ্যাকার বা ক্ষতিকারক সফটওয়্যার থেকে আপনি তত বেশি সুরক্ষিত। তাই সব একাউন্টে জোরালো পাসওয়ার্ড থাকা জরুরী।
শক্তিশালী পাসওয়ার্ড এর বৈশিষ্ট্যঃ
* অন্তত আট অক্ষর দীর্ঘ
* আপনার ইউজার নেইম, নিজস্ব নাম, ফোন নাম্বার বা কোম্পানির নাম হবে না।
* পূর্ণাংগ কোন শব্দ থাকবে না।
* আগের পাসওয়ার্ড থেকে বেশ আলাদা।
* নিচের সব ধরণের অক্ষরের সমাবেশ ঘটবে।
Character category
Examples
বড় হাতের অক্ষর                       
A, B, C
ছোট হাতের অক্ষর
a, b, c
সংখ্যা
0, 1, 2, 3, 4, 5, 6, 7, 8, 9
কি-বোর্ডের এই চিহ্নগুলো
` ~ ! @ # $ % ^ & * ( ) _ - + = { } [ ] \ | : ; " ' < > , . ? /

উপরের বৈশিষ্ট্যগুলো থাকার পরেও কোন পাসওয়ার্ড দুর্বল হতে পারে। যেমন Hello2U!। এটাকে এভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে H3ll0 2 U!। হ্যাঁ, পাসওয়ার্ডে স্পেস ব্যবহার সিদ্ধ। 
পাসওয়ার্ড মনে রাখার কিছু কৌশলঃ
* কোন বড় বাক্যকে সগক্ষিপ্ত করে নিন। যেমন I would like to drink fresh water. এটা থেকে বানিয়ে নিন Iwl2dfw। 
*পাসওয়ার্ড কোথাও লিখে রাখতে চাইলে অবস্যই দেখতে হবে, জায়গাটি কত টুকু নিরাপদ। 
Source:
1. http://windows.microsoft.com/en-us/windows-vista/tips-for-creating-a-strong-password

সোমবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

জিমেইলের মেইল আটো ফরওরার্ড করার উপায়


অনেক সময় আমাদের একাধিক ইমেইল ঠিকানা থাকে। হয়ত বা ব্যাবসায়িক কাজে নতুন মেইল খুলেছেন। কিন্তু এক্ষেত্রে সমস্যা হয় নতুন মেইল নিয়মিত চেক করা হয় না। অথচ, গুরুত্বপূর্ণ মেইল এসে বসে থাকতে পারে। তাই জিমেইল নিয়ে এলো সমাধান। আপনি এখন আপনার এক মেইল ঠিকানায় পাঠানো আপনার সচরাচর ব্যবহৃত মেইলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফরওয়ার্ড করে দিতে পারবেন।
দয়া করে সবগুলো ধাপ শেষ করবেন। দু' একটা রেখে আবার বলবেন না কাজ হয় না। 
তাহলে, চলুন করে ফেলি-
১. আপনার জিমেইলে প্রবেশ করুন
২. Basic HTML Option ব্যবহার করলে, উপরের ডান দিকের মেনু থেকে Settings এ ক্লিক করুন।
Standard View তে জিমেইল ব্যবহার করলে নিচের Gear টিতে ক্লিক করুন।
এখান থেকে Settings এ ক্লিক করুন।
৩. Forwarding and POP/IMAP ট্যাবে ক্লিক করুন
Basic HTML Option এ ছবি একটু অন্য রকম আসবে, কিন্তু লেখা একই থাকবে

৪. এবার Add a forwarding address- এ ক্লিক করুন। Basic HTML Option- এ থাকলে ক্লিক করা লাগবে না।
৫. যে ঠিকানায় ফরওয়ার্ড করতে চান, সেটি প্রবেশ করান।

৬. এবার জিমেইল উক্ত ঠিনাকায় একটি verification email পাঠাবে। এটি খুঁজে না পেলে Spam Folder দেখুন।
৭. verificationলিঙ্কে ক্লিক করুন। অথবা verification কোড আছে দেখবেন, সেটি কপি করে আগের ইমেইলে এসে প্রবেশ করান।
৮. জিমেইলে ফিরে গিয়ে পেইজ রিফ্রেশ করুন। কি বোর্ড দিয়ে করতে F5 চাপুন। মাউসে রাইট ক্লিক Reload।
৯. Forwarding and POP/IMAP ট্যাবে আবারও দেখুন Forward a copy of incoming mail সিলেক্ট করা আছে কিনা। আরও দেখুন মেইল ঠিকানা ঠিক মত লিখেছেন কিনা।
১০. ড্রপ ডাউন মেনু থেকে বাছাই করুন ফরওয়ার্ড করার পর মেইল দিয়ে আপনি কী করবেন।  keep Gmail’s copy in the Inbox (recommended) নাকি archive Gmail’s copy ইত্যাদি।
১১. অবশ্যই Save Changes এ ক্লিক করুন।

বন্ধ করতে চাইলে Forwarding and POP/IMAP ট্যাবে গিয়ে Disable forwarding ক্লিক করুন। 
আরো জানতে গুগলে যান 

মৃত মানুষের রেস জয়

১৯২৩ সালের জুনের ৪ তারিখ। প্রতিযোগী জকি (ঘোড়দৌড়ের পেশাদার ঘোড়সওয়ারকে জকি বলে) ফ্র্যাঙ্ক হায়েস বিজয় সীমানা পার হয়ে যান।  প্রতিযোগীতা হয়েছিল আমেরিকার নিউ ইয়র্কের লং আইল্যান্ডের বেলমন্ট পার্কে। ঘটনাটি উইকিপিডিয়ায় সমর্থিত। তখন হায়েসের বয়স ৩৫। এর আগে কখনোই তিনি রেসে জেতেননি।
ছবিটি ঐ রেসের নয়
তার ঘোড়া সুইট কিস তাকে সহ সবার আগে সীমানা পার হয়। কিন্তু এ জয় মোটেও সুখকর ছিল না।
দৌড়ের মাঝখানে হায়েস হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তবু, তাকেই বিজয়ী ঘোষণা দেওয়া হয়।
ঘোড়া যখন শেষ সীমা পার হয় তখন দেখা যায় হায়েস অতিরিক্ত নিরব। একটু পরেই তার প্রাণহীণ নিথর দেহ ঢলে পড়ল ঘোড়ার পিঠ থেকে।
পরে জানা যায়, তার ঘোড়া সুইট কিস অন্য ঘোড়াদের পেছনে ফেলার পরই তিনি হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন।
তিন দিন পর তাকে সমাহিত করা হয়। বেলমন্ট জকি ক্লাব এই জয়কে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেয়।
এটা একমাত্র ঘটনা যাতে মৃত জকি রেসে জিতেছেন, এমনকি আমাদের জানা ইতিহাসে এটাই মৃত কোন ব্যক্তির রেসে জেতার একমাত্র উদাহরণ।
 অবশ্য, তিনি পেশাদার জকি ছিলেন না, কাজ করতেন আস্তাবলে।
সূত্রঃ
১. http://www.buzzfeed.com/tomphillips/42-incredibly-weird-facts-youll-want-to-tell-people-down-the#3pqgfic
২. http://www.neatorama.com/2012/10/29/Frank-Hayes-The-Only-Dead-Man-to-Win-a-Horse-Race/#!Bq6yf
৩. http://en.wikipedia.org/wiki/Frank_Hayes_%28jockey%29

যে লোক মাটি, পাথর আর ইট খায়

তার নাম পাকিরাপা হুনাগুন্ডি। বয়স ৩০। সাবাড় করেছেন টনখানেক ইট। বাড়ি ভারতের কর্নাটকে। তিনি প্রতি দিন এই ধরণের আবর্জনা তিন কেজি করে খান! ডেইলি মেইল। খবরটি ২ এপ্রিল, ২০১৪ তারিখের।[নিচে ভিডিও দেখুন]
এটা আসলে একটা রোগ। নাম, পিকা। এই রোগে আসক্ত ব্যক্তি খাবার অযোগ্য জিনিসের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ে।
 দশ বছর বয়সে এই বাতিকে আক্রান্ত হন তিনি। তার পর থেকে খাবার বা নাস্তার সময় হলেই ছুটে যান মাটির, ইটের বা পাথরের দেয়াল বা স্তুপের কাছে।
 তার দাবী, এসব জিনিস খেয়েও তিনি দিব্যি বহাল তবিয়তে আছেন।
 তিনি বলে, "আমি ২০ বছর ধরে ইট, মাটি, পাথর খাচ্ছি। আমার এগুলো খেতে দারুণ লাগে। এটা আমার জীবনের অংশ হয়ে গেছে। শুর করেছিলাম ১০ বছর বয়সে। কিন্তু এখন এটা আমার জন্য অবিচ্ছেদ্য হয়ে গেছে। আমি অন্য খাবার ছাড়তে পারি কিন্তু ইট, মাটি নয়।"
"আমার কোন বিরূপ প্রতিক্রিয়া হয়নি। আমি নির্বিঘ্নে সবচেয়ে শক্ত পাথরে দাঁত বসাতে পারি।"
 তিনি বাড়ির একটা অংশ সাবাড় করে দিয়েছেন। তার মা তাকে এ অভ্যাস থেকে ফিরাতে পারেননি। হুনাগুন্ডির মতে নির্মাণ সামগ্রীই হচ্ছে A1 (সবচেয়ে ভালো) মানের স্বাদ। তিনি বলেন, "আমাকে ইট, মাটি, পাথরের বদলে মধু দিলেও নেবো না।"
 একজন গ্রামবাসী বলেন,"আমি তাকে ছোট বেলা থেকে চিনি। সে সব সময়ই মাটি, পাথর খেয়ে এসেছে। এক খণ্ড ছোট পাথরও মুখে বিষম আঘাত দেয়। অথচ সে সাবলীলভাবে খেয়ে যাচ্ছে"
এই অদ্ভুত কাণ্ডের খবর শুনে দূর দূরান্ত থেকে মানুষ তাকে দেখতে ভীড় করে।
তার এক বন্ধু বলনে, "সে কেউকেটা হয়ে গেছে, কিন্তু, বেচারা খুব গরীব। তাকে দেখলে আমাদের দুঃখ হয়। বোঝানোর চেষ্টা করেছি, কাজ হয়নি। এখন আর বোঝাই না।"
জনাব হুনাগুন্ডি, গ্রামের এক সাধারণ শ্রমিক যার নূন আনতে পান্তা ফুরোয়। এখন তিনি ঘুরে তার বিচিত্র কাজ মানুষকে দেখাবেন বলে ভাবছেন।
 তবে তিনি মায়ের প্রতি যত্নশীল।
তিনি বলেন,"বাবা মারা গেছেন ৪ বছর আগে। আমাকে মায়ের দেখাশোনা করতে হয়। আমার আয় রোজগার বেশি না, তাই এবার মেধা কাজে লাগাতে চাই।"
"আমি মানুষকে দেখাতে চাই আমার দক্ষতা,চাই কিছু অর্থ কামাতে"

সূত্রঃ
http://www.dailymail.co.uk/news/article-2595087/Indian-villager-addicted-eating-mud-rocks-BRICKS-gets-three-kilos-debris-day.html

বুধবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

সায়েন্স ফিকশন রিভিউ; গলফ ইন দা ইয়ার টু থাউজেন্ড

গলফ ইন দা ইয়ার টু থাউজেন্ড (Golf in the Year 2000) টাইম ট্র্যাভেল নিয়ে লেখা একটি সায়েন্স ফিকশনধর্মী উপন্যাস।  এর লেখক জে ম্যাককালো।  ১৮৯২ সালে প্রথম প্রকাশিত নভেলটি একবিংশ শতকের সঠিক চিত্র তুলে ধরতে পেরে নাম করে।
গল্পের প্রধান চরিত্র আলেকজান্ডার জে গিবসন ১৮৯২ সালে গভীর ঘুমে তলিয়ে যান।  জেগে দেখেন ২ হাজার সাল হয়ে গেছে অনেকটা যেন আসহাবে কাহাফের মত। এর মানে উনি ১০৮ বছর নিদ্রামগ্ন ছিলেন।  তত দিনে তার বাড়ির মালিকানা পাল্টেছে।  বাড়ির মালিকের সাথে কথাবার্তা শুরু।  সেও গিবসনের মতই গলফ খেলোয়াড়। দু' জনের গলফ মাঠে যাওয়া নিয়েই গল্পের মূল আবর্তন।

এত দিনে প্রযুক্তির ছোঁয়ায় গলফ খেলায় এসেছে আমূল পরিবর্তন।  গলফ ক্লাবে খেলোয়ারদের স্কোর রেকর্ড করা হয়। আগে যেখানে গলফারের ব্যাগ ব্যাগেজ বহনের জন্য আলাদা লোক লাগত এখন সেই কাজ সারা হয় বিশেষ গলফ কার্ট (ঠেলা গাড়ী) দিয়ে।  সবার জন্য অবশ্য পরিধেয় বিশেষ গলফ জ্যাকেট গলফার সুইং শুরু করলে যা ফোর (Fore!) বলে চেচিঁয়ে ওঠে.
সায়েন্স ফিকশনটিতে চিত্রায়িত ২০০০ সালের প্রকৃত ছবি আধুনিক পাঠককেও বিমোহিত করে। যেমন বুলেট ট্রেন, ডিজিটাল ঘড়ি, টেলিভিশন- এসব যন্ত্রের ব্যবহার যদিও সবক্ষেত্রে তাঁর দেওয়া নামগুলো অবিকল নেই। এছাড়াও লেখকের ব্রিটিশ পাউন্ডের ডেসিমাল কয়েনে রূপান্তরের পূর্বানুমান যথার্থ বলে প্রমাণিত হয়।
তবে আকাশে ওড়াউড়ির ধারণা গল্পটি দিতে পারেনি। তার বদলে বলেছে, সমুদ্রতল দিয়ে যাতায়াতকারী ট্রেন আটলান্টিকের এপার থেকে ওপারে কয়েক ঘন্টায় পৌঁছিয়ে দেবে। গল্পে একটি রাসায়নিক যুদ্ধাস্ত্রের কথা বলা হয়েছে যার প্রতিক্রিয়া অবশ্য বাস্তবতার চেয়ে ভিন্নতর। নভেলটির আরেকটি পূর্বানুমান হল নারী স্বাধীনতা। গল্পের কেন্দ্রিয় চরিত্র গিবসন দেখেন যে ২০০০ সালে মেয়েরা পুরুষদের মত জামা কাপড় পরে, ব্যাবসায় কতৃত্ব করে -যেখানে ব্যাংকের কেরাণিরা সবাই মহিলা। এমনকি, নারীদের পদচারণা আছে সরকারেও। সত্যি বলতে, নারীরাই সব কাজ করে, আর পুরুষদের কাজ হল সারাদিন গলফ খেলা! 
১৮৯২ সালে Unwin সায়েন্স ফিকশনটি প্রকাশ করে। বইটি ১৯৯৮ সালে  পুনঃমুদ্রিত হয়েছিল। পাওয়া যাচ্ছে অনলাইনেও।
সোর্সঃ
১. http://en.wikipedia.org/wiki/Golf_in_the_Year_2000
২. http://www.golf-in-the-year-2000.com/

সোমবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

২০১২ এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের বিজয় (ভিডিও)

ভারতঃ ২৯০। 
বাংলাদেশঃ ২৯৩/৫। তামিম ৭০, জহরুল ৫৩, নাসির ৫৪, সাকিব ৪৯, মুশফিক ৪৬।
ফলাফলঃ বাংলাদেশ ৫ উইকেটে জয়ী।